আজ ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই মার্চ, ২০২১ ইং

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ৪৫ বছরেও বাবার মৃত্যুশোক ভুলেননি, ২ দিনে তারা কিভাবে ভুলবে ?

বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় নিহত শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম রাজীব ও একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মীমের পরিবারকে সান্ত্বনা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শোকাহত স্বজনরা সাক্ষাৎ করতে গেলে দুই পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানিয়ে সান্ত্বনা দেন শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে ২০ লাখ টাকা করে ৪০ লাখ টাকার পারিবারিক সঞ্চয়পত্র অনুদান দেন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকারীদের মধ্যে রয়েছেন নিহত মীমের মা রোকসানা বেগম, বাবা জাহাঙ্গীর আলম, বড় বোন রোকেয়া খানম রিয়া ও ছোট ভাই পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী রিয়াদুল ইসলাম আরাফাত। আর রাজীবের স্বজনদের মধ্যে ছিলেন মা মনোয়ারা বেগম, ছোট ভাই মো. আল আমিন ও এক বোন। উল্লেখ্য, গত রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনের বিমানবন্দর সড়কে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একদল শিক্ষার্থী।

এ সময় বেসরকারি জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস শিক্ষার্থীদের চাপা দিলে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম ও একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মীম ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এ ছাড়া বাসচাপায় আহত হন আরও ১৩ জন।

এ ঘটনা কেন্দ্র করে পাঁচ দিন ধরে রাজধানীজুড়ে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন বিভিন্ন স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তারা দোষী পরিবহনকর্মীদের বিচার ও নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগসহ ৯ দফা দাবি জানাচ্ছেন।

আন্দোলনে ব্যানার হাতে একজন বলেন , মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ৪৫ বছরেও বাবার মৃত্যুশোক ভুলেননি, ২ দিনে তারা কিভাবে ভুলবে ?

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: