আজ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

বাসচাপায় ২ শিক্ষার্থীর মৃত্যু: আজও রাস্তায় শিক্ষার্থীরা

রাজধানীতে বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় টানা তৃতীয় দিনের মতো রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ দাবিসহ নিহত শিক্ষার্থীদের মৃত্যুর ঘটনায় ন্যায্য বিচার দাবিতে এ বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। এর ফলে আজও পুরো ঢাকা শহর প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থীরা সকাল ১০টার র্যা ডিসন হোটেলের সামনের রাস্তায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করার চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশ সদস্যদের তৎপরতায় শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করতে পারেনি। সেখানে পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে।

তবে এর পরপরই ফার্মগেটে বাবুল টাওয়ারের সামনে স্থানীয় কয়েকটি কলেজের শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিলে ওই সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অতিরিক্ত উপ-কমিশনার নাজমুল আলম জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে রয়েছে। চলাচল স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

রাজধানীর মিরপুরেও স্থানীয় কয়েকটি স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করছে। জানা গেছে, মিরপুর বাংলা কলেজ ও চিড়িয়াখানা রোডে অবস্থিত বিসিআইসি স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা নিজেদের সড়কের সামনে রাস্তা অবরোধ করে বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেছে।

খবর পেয়ে মিরপুর থানার দুটি টিম পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। এখন পর্যন্ত দুটি প্রতিষ্ঠানের সামনে প্রায় ২০টি গাড়ি ভাঙচুর করেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল বিকেলেও মিরপুরে দারুস সালাম রোডে গাড়ি ভাঙচুর করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এদিকে কুর্মিটোলা ফ্লাইওভারটিতে অন্যান্য দিনের মতো গণপরিবহন নেই বললেই চলে। এতে শুধু কিছু প্রাইভেটকার, সিএনজি এবং ব্যক্তিগত গাড়ি ও সরকারি গাড়ি চলাচল করছে। বিশেষ করে মিরপুর হয়ে যমুনা ফিউচার পার্ক প্রগতি সরণি হয়ে যে গাড়িগুলো বাড্ডা, নতুনবাজার এালাকায় যায় সেগুলো একেবারেই বন্ধ রয়েছে। এর ফলে এক ধরনের গণপরিবহন সংকট সৃষ্টি হয়েছে।

গত রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস বিমানবন্দর সড়কের জিল্লুর রহমান ফ্লাইওভারের গোড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন- শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের মানবিক শাখার দ্বাদশ শ্রেণির আবদুল করিম রাজীব এবং একাদশ শ্রেণির দিয়া খানম মিম।

ঘটনার পর ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে এসে যানবাহনে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ শুরু করে। এ ঘটনায় দিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর আলম রোববার রাতে ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন। বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে হত্যার অভিযোগ আনা হয় ওই মামলায়।

ওই ঘটনায় সোমবার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনের এলাকায় শিক্ষার্থীরা ঢাকার বিমানবন্দর সড়কের দুই দিক অবরোধ করে কয়েক ঘণ্টা বিক্ষোভ দেখায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: