আজ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

সুইসাইড নোটে শিক্ষিকার মানসিক চিকিৎসা চেয়ে ছাত্রীর আত্মহত্যা

রাজধানীর শাহজাহানপুরে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন। তার নাম সুমাইয়া আক্তার মালিহা (১৪)। মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) রাত ১০টার দিকে গুলবাগ এলাকার একটি বাসা থেকে পুলিশ ওই স্কুলছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে। মৃত মালিহা বংশাল কায়েতটুলি এলাকার মোহাম্মদ আলীর মেয়ে। তারা শাহজাহানপুর গুলবাগ পারহাউজ এলাকার ২৭৬/বি নম্বর বাসার ৬ তলায় ভাড়া থাকেন।

স্কুলের এক শিক্ষিকার দুর্ব্যবহারে মানসিক চাপের কারণে মালিহা আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি করেছে তার পরিবার। কারণ, মৃত্যুর আগে মালিহা তার রুলকরা খাতার পাতায় লিখে গেছেন তার মৃত্যুর কারণ একমাত্র রিমি মেডাম।

সুইসাইড নোটে লেখা ছিল, “আমার  ‍Suicideকরার কারন একমাত্র রিমি মেডাম। সে শুধু আমাকে দেখে তার জিদ কমানোর জন্য। সে অযথা পরীক্ষায় আমার খাতা নিসে। আর পরীক্ষায় কম নাম্বার দিসে। তোমরা যদি পার তাহলে সে মেডামের মানসিক চিকিৎসা দাও। Mental Hospital এ পাঠাও। মেডাম আমারে অভিশাপ দিসে, তাই আমি ভালো result খারাপ হইছে। Maliha”

শাহজাহানপুর থানার এসআই মো. মনিরুজ্জামান জানান, মঙ্গলবার রাতে খবর পেয়ে উক্ত বাসায় গিয়ে ফ্যানের সঙ্গে উড়না পেচানো ঝুলন্ত কিশোরীর মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে বুধবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মৃতা মালিহার চাচাতো ভাই আলমগীর মিয়া জানান, মালিহা শহীদ ফারুক ইকবাল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্রী ছিল। দশ বার দিন আগে পরীক্ষা শেষ হয়। পরীক্ষার সময় ব্যবসা শিক্ষার শিক্ষিকা মালিহার পরীক্ষার খাতা কেড়ে নেয় এবং মার্কও কমিয়ে দেয়। এতে মালিহা মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে। রেজাল্ট খারাপ হবে এমন আশংকায় পেয়ে বসে মালিহাকে।

মঙ্গলবার রাতে মালিহার মা মুনমুন বেগম ছোট মেয়ে সামিহাকে নিয়ে পাশের কক্ষে ছিল। হঠাৎ মালিহা তার কক্ষের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে দেয়। দীর্ঘক্ষন ডাকাডাকির পর কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে পরিবারের লোকজন দেখতে পায়, ফ্যানের সঙ্গে উড়না পেচিয়ে ঝুলছে মালিহা।

পরে স্থানীয় থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে। এসময় সুমাইয়া খাতার পাতায় নিজের আত্মহত্যার কারণ লিখে যাওয়া সুইসাইড নোটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এদিকে মালিহার লেখার সূত্র ধরে দায়ের করা মামলার ভিত্তিতে শিক্ষিকা রিমি আক্তারকে গ্রেপ্তার করা করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান শাহজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

One response to “সুইসাইড নোটে শিক্ষিকার মানসিক চিকিৎসা চেয়ে ছাত্রীর আত্মহত্যা”

  1. Super-Duper blog! I am loving it!! Will come back again. I am bookmarking your feeds also.

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: