আজ ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ওয়াইফাইয়ের লোভে সরকারি অফিসে ছেলেদের ভিড়

নওগাঁ প্রতিনিধি: ফ্রি ওয়াইফাই। নেটের গতি দ্রæত। গেইম খেলাসহ ফেইসবুক চলবে ভালো এমনটা কে না চায়? আর এই সরকারি ফ্রি ওয়াইফাইয়ের লোভে নওগাঁর রাণীনগরে উপজেলা পোস্ট অফিস প্রাঙ্গনে যুবাদের ভিড়সহ গাদারিং দিন দিন বেড়েই চলেছে। এতে করে বিড়ম্বনার সম্মুখিন হতে হচ্ছে পোস্ট অফিসে আসা সেবা গ্রহিতাদের। ব্যাহত হচ্ছে সরকারের জনগুরুত্বপূর্ন এই দপ্তরের স্বাভাবিক কার্যক্রম। বার বার নিষেধ করার পরও সমাধান হয়নি এই সমস্যার। তাই পোস্ট অফিসে আসা সেবা গ্রহিতা, সংশ্লিষ্ট অফিসে কর্মরতরা এবং স্থানীয়রা সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পোস্ট অফিস প্রাঙ্গনে দলে দলে বসে উঠতি বয়সের ছেলেরা হাতে অ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোনে সরকারি ওয়াইফাই চালু করে বসে বসে আড্ডা দিচ্ছে। দেখে মনে হবে পোস্ট অফিস নয় কোন এক সরাইখানা। কেউ গেমস খেলছে, কেউ ইমোর মাধ্যমে কথা বলছে আবার কেউ অন্য কোন কাজ করছে। ঘন্টার পর ঘন্টা চলে এই আড্ডা। করোনা ভাইরাসের কারণে স্কুল ও প্রাইভেট বন্ধ থাকায় কিছুটা কমেছে এই আড্ডা। পোস্ট অফিসের এক পাশে রয়েছে থানা অপর পাশে রয়েছে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। আর এই পোস্ট অফিসের আশে পাশে বিভিন্ন শিক্ষকরা প্রাইভেট পড়ানোর কারণে এই আড্ডাটি বেশি হয় বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। প্রতিদিন পোস্ট অফিসে বিভিন্ন কাজে শত শত মেয়ে, নারী, পুরুষসহ বয়স্ক মানুষরা আসেন। বয়স্ক থেকে শুরু করে অনেকেই টাকার লেনদেন করার জন্যও আসে। গুরুত্বপূর্ন সরকারি দপ্তরে সকাল থেকে দুপুর এমন কি সন্ধ্যা পর্যন্ত এমন আড্ডা চলতে থাকলে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঘন্টার পর ঘন্টা এভাবে ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবহার করার কারণে নৈতিকতাসহ পড়ালেখা নষ্ট হচ্ছে এই সব উঠতি বয়সের ছেলেদের। ইন্টারনেটে বিভিন্ন মন্দ বিষয়গুলোর প্রতি যুবারা আশক্ত হয়ে পড়ায় সমাজে ঘটছে নানা রকমের অপ্রীতিকর ঘটনা। শুধু পোস্ট অফিসেই নয় ইদানিং উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনেও ছেলেদের এই ধরনের গাদারিং চোখে পড়ছে। এই বিষয়টি দ্রæত সমাধানের জন্য সরকারের প্রদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

পোস্ট অফিসে সেবা নিতে আসা বীরমুক্তিযোদ্ধা খোন্দকার হোসেন আলী জানান, যখনই পোস্ট অফিসে কোন প্রয়োজনে আসি তখনই উঠতি বয়সের ছেলেদের এই গাদারিং চোখে পড়ে। এতে করে পোস্ট অফিসের স্বাভাবিক পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে তেমনি ভাবে চরম বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে আমাদের। শুধু পোস্ট অফিসই নয় নষ্ট হচ্ছে আশেপাশের পরিবেশও। এই আড্ডার কারণে রাস্তা দিয়ে মেয়েদের চলাচলেও পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। এই সব ছেলেদের পরিবারকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দ্রæত পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

পোস্ট অফিসের মাস্টার জালাল উদ্দিন জানান, পোস্ট অফিসের অবস্থা খুবই নড়বড়ে। চারিদিকের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই বললেই চলে। রাতে এক ভুতুড়ে অবস্থার সৃষ্টি হয়। এরপর সরকার ওয়াইফাই প্রদান করায় এই সমস্যাটি দিন দিন প্রকট আকার ধারন করছে। কোথা থেকে এই ছেলেরা ওয়াইফাইয়ের পাসওয়ার্ড যোগার করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বসে বসে মোবাইল ব্যবহার করে। একাধিকবার নিষেধ করেও কোন লাভ হয়নি। পুলিশকে জানানোর পর দুই একজনের ফোন জব্দ করেছিলো কিন্তু তাতেও কোন লাভ হয়নি। অফিস চলাকালীন সময়ে আমাদের আতঙ্কের মধ্যে থাকতে হয়। বিশেষ করে আশেপাশে শিক্ষকরা প্রাইভেট পড়ানোর কারণে এই আড্ডা আরো বেশি হয়। দলে দলে ছেলেরা বসে বসে ওয়াইফাই ব্যবহার করে। এতে করে পোষ্ট অফিসে আসা সেবা গ্রহিতাদের চরম বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। আমি বিষয়টি একাধিকবার উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়েছি কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। তবে এই সমস্যাটি দ্রæত সমাধান করতে না পারলে কোন অপ্রীতিকর ঘটনার সৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া পোস্ট অফিসের প্রতি সাধারন মানুষদের আস্থা আরো নষ্ট হয়ে যাবে।

Comments are closed.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: