আজ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

কাকিনা-মহিপুর তিস্তার পাড় দর্শার্থীদের সমাগমে মুখরিত

ঈদ মুসলমানদের সবচেয়ে বড় খুশির দিন। বছর ঘুরে মুসলিম উম্মাহর দূয়ারে আবারো হাজির হয়েছে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা । হিংসা- বিদ্বেষ আর ভেদাভেদ ভুলে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মিলিত হয় ঈদের এই সীমাহীন আনন্দ-উৎসবে। ঈদ সবার জীবনেই কম-বেশি আনন্দ এনে দেয়। আর তাই ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়েছে ঈদ আনন্দ উদযাপনের।
ঈদ এলেই চিত্তবিনোদন পিপাসু মানুষের মিছিলে মুখরিত হয়ে উঠে কাকিনা মহিপুর তিস্তার পাড়। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। বরং ঈদ-উল-আযহার’র ৩য় দিনেও গতবারের চেয়ে এবার দর্শনার্থীদের পদচারণায় যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা।
রংপুর ও লালমনিরহাট জেলার মানুষের মেলবন্ধনে মহিপুর-কাকিনা পয়েন্টে নবনির্মিত ‘শেখ হাসিনা তিস্তা সড়ক সেতুর’ টানেই হাজার হাজার মানুষের ভিড় সেখানে।
সূর্যের লুকোচুরি, বিশাল ধু-ধু বালুচরে সবুজ মাঠ, আর তিস্তার বুকে সমুদ্র সৈকতের খেলা দেখতে এখানে ছুটে এসেছে বিভিন্ন এলাকার মানুষজন। বন্ধুদের নিয়ে নৌকায় ভাসতে ভাসতে কেউ কেউ ঘুরে দেখছে নদীর কুল-কিনারা। কেউ ব্যস্ত মোবাইল ফোনে সেলফি নিতে। সেতুর উপর-নিচ শুধুই মানুষ আর মানুষ। কর্মময় জীবনের ব্যস্ততায় হাঁপিয়ে উঠা মানুষগুলোর বেশির ভাগই এখানে খুঁজে ফিরে পান ফেলে আসা সোনালি দিনের স্মৃতি।
এদিকে রংপুর, লালমনিরহাট ও নীলফামারী জেলাসহ বিভিন্ন এলাকার লোকজনের সমাগমে মুখরিত তিস্তার পাড়ে এখন বইছে আনন্দের জোয়ার। তবে ঈদের ছুটিতে থাকা সব বয়সী মানুষের ভিড় জমলেও এখানে আসা সিংহভাগই তরুণ-তরুণী। শিশুদের সঙ্গে অভিভাবকরাও কিছুক্ষণের জন্য হারিয়ে যাচ্ছে আনন্দের রাজ্যে।
এখানে দুরদুরান্ত থেকে ঘুরতে আসা কয়েকজন           দর্শনার্থীদের সঙ্গে কথা হয় “দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশের”। তারা জানান, ঈদের আনন্দ কেউ মিস করতে চায় না। আমরা এসেছি তিস্তার পাড়ের বিচিত্র আনন্দ উপভোগ করতে। যা অন্য কোনো নদীর পাড়ে হয়তো এটা সম্ভব নয়। এখানে এসে অসম্ভব আনন্দ উপভোগ করছি।
লালমনিরহাটের কালিগঞ্জ উপজেলার চাপারহাট থেকে এসেছেন রাবেয়া বেগম। তিনি “দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশ”কে  জানান, “নবনির্মিত শেখ হাসিনা তিস্তা সড়ক সেতু”র সংযোগ সড়কের দু’পাশের বিশাল দীঘির চারদিকে রয়েছে নানা প্রজাতির গাছগাছালির সমাহার। পানি আর সবুজ মিলে সে এক অপরূপ দৃশ্য। মনে হয় যেন এ এক সমুদ্র সৈকত।
রংপুর থেকে আসা আখিঁ এবং ফারুক আহমেদ তারা দুই বন্ধু এখানে বেড়াতে এসেছেন। কথা হয় ফারুক আহমেদের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘নদীর বুকে ভাসমান বিলুপ্ত আশির দশকের বেশ কিছু পাল তোলা নৌকাগুলো দেখতে বেশ ভালো লাগে। এগুলো আমাদের মতো অন্যদেরও নজর কাড়ছে। আমরা ক্যামেরা ও মোবাইল ফোনে বেশ কিছু প্রিয় মুহূর্ত বন্দী করেছি।’
এরকম হাজার হাজার মানুষ ঈদ আনন্দে কিছুটা সময় এখানে ঘুরতে মোটরসাইকেল, মিনিবাস, কার, মাইক্রোবাস, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় চড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে তিস্তার পাড়ে আসছে।
স্থানীয়রা মনে করছে, পর্যটক ও দর্শনার্থীদের আকর্ষণ বাড়াতে সরকারি সহায়তায় মহিপুর তিস্তার পাড়কে নতুন মাত্রায় সাজানো হলে এখান থেকে বিপুল পরিমাণ সরকারের কোষাগারে রাজস্ব আসবে। এতে করে দিন বদলের এই যুগে বদলে যাবে নদী ভাঙন কবলিত মহিপুরের মানুষের জীবনযাত্রার মানও।

৪ responses to “কাকিনা-মহিপুর তিস্তার পাড় দর্শার্থীদের সমাগমে মুখরিত”

  1. I know this site offers quality based content and extra data,
    is there any other web page which offers such stuff in quality?

  2. Hey, you used to write great, but the last several posts have been kinda boring?K I miss your tremendous writings. Past few posts are just a little out of track! come on!

  3. hey there and thank you for your info – I have definitely picked
    up something new from right here. I did however expertise a few technical points using
    this site, as I experienced to reload the web site many times
    previous to I could get it to load properly. I had been wondering if your web hosting is OK?

    Not that I am complaining, but sluggish loading instances times will sometimes affect your placement in google and can damage your high-quality score if advertising
    and marketing with Adwords. Anyway I’m adding this RSS to
    my email and can look out for a lot more of your respective intriguing content.
    Ensure that you update this again soon.

    My webpage: biden we did hat

  4. Hi there, i read your blog occasionally and i own a similar one
    and i was just curious if you get a lot of
    spam responses? If so how do you prevent it, any plugin or anything you can advise?
    I get so much lately it’s driving me mad so any assistance is very much appreciated.

    my site :: biden we just did

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: