আজ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

ঠাকুরগাঁওয়ে ঈদের যন্ত্রপাতি তৈরীতে ব্যস্ত কামার পল্লী

ঠাকুরগাঁওয়ে কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে কামার পল্লীতে বেড়েছে ব্যস্ততা -পবিত্র ঈদুল আযহা তথা কোরবানীর ঈদের আর কয়েক দিন বাকি। আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে ঠাকুরগাঁও জেলার উপজেলাগুলোর প্রত্যন্ত জনপদের কামার পল্লীতে ইতি মধ্যে ব্যস্থ হয়ে পড়েছে কামারীরা। ব্যস্থতায় মুখর হয়ে উঠেছে কামারশালা গুলো, যেনো দম ফেলার কোন ফুরসত নেই তাদের।

ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে এখন ব্যস্ততা আরও বেড়ে গেছে।

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার যাদুরানী বাজারের কামার কৃষ্ণ জানান, আমি ২০ বছর ধরে কামার পেশায় কাজ করি বিভিন্ন সময়ের কোরবানীর ঈদে শত শত গরু, খাসি, মহিষ ইত্যাদি পশু কোরবানী করা হয়ে থাকে। এসব পশু জবাই থেকে শুরু করে রান্নার জন্য চূড়ান্ত কাজ পর্যন্ত দা-বটি, ছুড়ি-ছোড়া চাপাতি ইত্যাদির ধাতব হাতিয়ার প্রয়োজন হয়।

ঈদের বিপুল চাহিদার যোগান দিতে এক মাস আগে থেকেই কাজ শুরু হয়েছে। একই ধরনের কথা বললেন হরিপুরের ধীরগন্জ বাজারের তরুনী চন্দ্র রায় ও চৌরঙ্গী’র পুলক । তারা পুরাদমে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। যেনো নিশ্বাস ফেলার সময় নেই তাদের । ঈদের আর কয়েকদিন বাকি থাকলেও ক্রেতাদের চাহিদা সরবরাহ করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। ঈদের আগ পর্যন্ত ঠিকমত নাওয়া খাওয়ার সময় পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানান তারা। কাঁচা-পাকা লোহা দিয়ে তৈরী করা হয় ধাতব যন্ত্রপাতি।

পাকা লোহার দা-ছুড়ি সবসময়ই একটু বেশি দামে বিক্রি হয়ে থাকে বলে জানান । সংশ্লিষ্টরা জানান, দা আকৃতি ও লোহা ভেদে ৭০ থেকে ৪০০ টাকা, ছুরি ৬০ থেকে ৩০০ টাকা, ছোরা প্রতিটি সর্বোচ্চ ৮০ থেকে ১০০ টাকা, চাপাতি ২২০ থেকে ৪৫০ টাকা এবং ধার করার স্টিল প্রতিটি ৫০ থেকে ৬০ টাকা করে বেচাকেনা হচ্ছে। পুরানো যন্ত্রপাতি শানদিতে বা “পানি” দিতে ৫০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে। কামার পল্লীতে এই ব্যস্ততা ঈদের দিন সকাল পর্যন্ত চলবে বলে কামারশালার লোকজনরা জানান

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: