আজ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

ঠাকুরগাঁওয়ের সর্ববৃহৎ যাদুরানী হাটে কোরবানির পশুর কেনা-বেচা জমে উঠেছে

ঠাকুরগাঁও জেলার সর্ববৃহৎ গরু বেচা-কেনার হাট যাদুরানীতে । ঠাকুরগাঁও হরিপুরের এই যাদুরানী হাটের গরু বেচা-কেনার ঐতিহ্য রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া ক্রয় করার জন্য আসে ক্রেতারা বা গরু ব্যবসায়ীরা।

দূর-দূরান্ত থেকে গরু, মহিষ, ছাগল কেনার জন্য আসায় গরু বিক্রেতারাও বেশি অর্থের লাভে এই হাটে তাদের পশু নিয়ে আসেন। আর কয়েকদিন পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পবিত্র ঈদ-উল-আজহা। এই ঈদকে সামনে রেখে যাদুরানী হাটে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া আমদানি হচ্ছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। কিন্তু গত বছরের চেয়ে এবার কোরবানির পশুর দাম স্বাভাবিক বলে জানান ক্রেতা ও বিক্রেতারা। মঙ্গলবার যাদুরানী গরুর হাটে গিয়ে দেখা যায়, ছোট-বড়, ষাঁড়-বলদ, বকনা-গাভী সহ প্রায় ১ হাজার গরু হাটে এসেছে। গরু গুলির কি পরিমাণ মাংস হবে জানতে চাইলে স্থানীয় কসাই বলেন, প্রতিটি গরুর ৩ থেকে সাড়ে ৪ মণ মাংস হবে। প্রতিটি গরুর দাম চাচ্ছেন ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা। বটতলা গ্রামের শিষ মোহাম্মদ ২টি গরু বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছেন হাটে, প্রতিটি গরুর মাংস হবে সাড়ে ৬ থেকে ৭ মন, ক্রেতা গরু ২টির দাম শুনতে চাইলে বিক্রেতা গরু ২টির দাম হাকেন ৪ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা গরু ব্যবসায়ী গরু ২টির দাম বলেন ৪ লক্ষ টাকা । বিক্রেতা শিষ মোহাম্মদ গরু ২টি ৪ লক্ষ টাকায় বিক্রী করেননি । স্হানীয় গরু ব্যবসায়ী মুন্জুর বলেন, কোরবানির হাটে বিক্রির উদ্দেশ্যে এলাকার প্রায় প্রতিটি কৃষক পরিবার গরু পালে। গরুর হাটে সরেজমিনে ঘুরে ক্রেতা-বিক্রেতা, গরুর খামার মালিক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়। অন্য দিকে ছাগলের দাম বেশি বলে জানিয়েছেন ক্রেতারা ও ছাগল ব্যবসায়ীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: