আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

ইউএনও কে  গোনার সময় আমার নেই – সাতমাইল পশুহাটের ইজারাদার নাজমুল

যশোরে শার্শা উপজেলার সাতমাইল গরু হাটে ইজারাদারের বিরুদ্বে জোরপূর্বক অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে প্রতি হাজারে ৬০ টাকা হারে অতিরিক্ত খাজনা আদায় করা হচ্ছে। এছাড়া ৩ হাজারের বেশি ব্যাপারীর কাছ থেকে মাথাপিছু ৩ হাজার ৫ শত টাকা নিয়ে কার্ড প্রদান করা হয়েছে। কার্ডধারী ব্যাপারিদের কাছ থেকে চালানী পাস বাবদ গরু প্রতি ৩’শ টাকা আদায় করা হচ্ছে। সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে জোর পূর্বক অতিরিক্ত খাজনা আদায় করলে ও দেখার কেউ নেই। বাধ্য হয়ে ক্রেতাদের অতিরিক্ত টাকা গুনতে হচ্ছে।  গত ১১ আগষ্ট শনিবার শার্শার সাতমাইল গরু হাটে সরেজমিনে দেখা যায়, ইজারাদাররা গরু ছাগল প্রতি সরকারি আদেশ অমান্য করে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে। আব্দুল অহেদ নামে একজন ক্রেতা ৬ লাখ টাকার মুল্যের ১৫ টি গরুর খাজনা নিয়ে হাটের ইজারাদার নাজমুলের সাথে দরকষাকষি নিয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে বিষয়টি শার্শার উপপজেলা নির্বাহী অফিসার পর্যন্ত গড়ায়। ঐ ক্রেতার প্রতিনিধি ইউএনও কে ফোন করলে তিনি ইজারাদার নাজমুলকে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী খাজনা নেওয়ার কথা বলেন।
ফোনালাপ শেষে নাজমুল দম্ভোক্তি করে বলেন, ‌”২৫ লাখ টাকা ঘুষ দিয়ে হাট নিয়েছি। কাজেই ইউএনও কে গুনার সময় নাই আমাদের নিয়ম অনুযায়ী খাজনা দিতে হবে। এমপির নিকট থেকে অনুমতি নিয়ে আসলে খাজনা কম নেওয়া যাবে”।
অনেক অনুরোধের পর ঐ ক্রেতার নিকট থেকে ছোট আকারের ১৫ টি গরুর খাজনা বাবদ ৪ হাজার ৫ শত টাকা আদায় করা হয়। যার রশিদ নং ১৩২৪১। এ বিষয়টি পুনরায় শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করা হলে তিনি বলেন, “বিষয়টি দেখবো”।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap
%d bloggers like this: