আজ : ১৫ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, রবিবার প্রকাশ করা : মার্চ ২৩, ২০২২

  • কোন মন্তব্য নেই

    মনোহরদীতে জোর করে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা

    মোঃ তাজুল ইসলাম বাদল, নরসিংদী জেলা প্রতিনিধিঃ

    মনোহরদী উপজেলা ধীন খিদিরপুর ইউনিয়নের পশ্চিম রামপুর গ্রামের প্রবাসী মোঃ শামীম এর স্ত্রী শান্তা আক্তার (২৫) কে ধর্ষণ চেষ্টা করেছে একই গ্রামের বখাটে দুই যুবক মোহাম্মদ আলীর ছেলে সেলিম (৩৮) ও জামাল উদ্দীনের ছেলে নাইম মিয়া (২২)।

    জানা যায়, উক্ত আসামীরা গত ৭ই মার্চ সন্ধ্যা ৭ ঘটিকার সময় বাদী শান্তা আক্তার কে শরিফপুর বাজারের পূর্ব পাশে কালভার্টে পার হওয়ার সময় কুপ্রস্তাব দেয়। ভুক্তভোগী  রাজি না হইলে তাকে জোর করিয়া গলায় টিপে দরে টানা হেচরা করিয়া নিকট বর্তি শাখাওয়াত মেম্বারের পানের বরজের ভিতর নিয়ে গিয়ে শান্তাকে কাপর চোপড় খুলে বিবস্ত্র করে। এবং মোবাইল ফোনে বিবস্ত্র ছবি তুলে। এসময় তার আত্মচিৎকারে আসে পাশের লোকজন ছুটে আসে। পরে তারা পালিয়ে যায়।

    এসময় ভ্যানিটি ব্যাগে থাকা ১টি ভিভো মোবাইল ফোন যাহার মূল্য ১২,০০০ হাজার টাকা ও ২০,০০০/- হাজার টাকা নিয়া উভয়ে পালাইয়া যায়। লোক জন জমায়েত হয় এবং উক্ত ঘটনা বলে।

    উক্ত ঘটনা কে দামাচাপা দিতে ও এলাকার প্রভাবশালী লোকজন মীমাংসা করিবে বলিয়া শান্তাকে বলে এবং শান্তাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। ঘটনার বিবরনে স্থানীয় লোকজনের মুখে শোনা যায় যে আসামী সেলিম ও নাইম মিয়া দীর্ঘ দিন ধরিয়া শান্তা আক্তার কে প্রেম নিবেদন ও কু-প্রস্তাব দিয়ে আসিতে ছিল এবং শান্তা আক্তার নিকট তম আত্মীয়-স্বজন ও এলাকার ব্যক্তিবর্গের কাছে ঘটনা বলে।

    গত ২২/৩ /২০২২ ইং মনোহরদী থানায় একটি পর্নোগ্রাফি ও নারী ও শিশু আইনে মামলা রুজু করা হয়। এবং অধ্য ২৩/৩/২০২২ ইং মনোহরদী থানার সন্মানিত জনাব মোঃ আনিচুর রহমান ওসি মনোহরদী থানা নরসিংদী মহোদয়ের নির্দেশ ক্রমে ও রামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সম্মানিত ইনচার্জ জনাব মোঃ সফিকুর রহমান (ওসী তদন্ত) তাহার দিক নির্দেশনায় রামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের চৌকশ পুলিশ অফিসার জনাব মোঃ মনজুরুল ইসলাম (এস আই) সঙ্গীয় ফোর্সসহ আসামীদের গ্রেফতার করিতে সক্ষম হয়।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.