আজ : ১৪ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, শনিবার প্রকাশ করা : ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২২

  • কোন মন্তব্য নেই

    যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন করায় সিআইডির কর্মকর্তাকে কারাদণ্ড

    নিজস্ব প্রতিবেদকঃ


    যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করার মামলায় সিআইডি পুলিশের এক উপপরিদর্শককে (এসআই) দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরও তিন মাস কারাভোগ করতে হবে সিআইডির ওই কর্মকর্তাকে। লালমনিরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক মোর্শেদ তারেক সিদ্দিকী গতকাল বুধবার বিকেলে এ রায় দেন।

    রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন অভিযুক্ত ও সাজাপ্রাপ্ত সিআইডি কর্মকর্তা আবদুল আখের। একই আদালত থেকে এর আগে জামিনে ছিলেন তিনি। রায় ঘোষণার পর জামিন বাতিল করে আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক সাজা ভোগের জন্য আবদুল আখেরকে লালমনিরহাট জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

    আদালত ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আবদুল আখের কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার নাখারগঞ্জ আজমাতা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। ২০১৫ সালের ১৭ এপ্রিল লালমনিরহাট সদর উপজেলার মোগলহাট ইউনিয়নের কর্ণপুর গ্রামের আকবর ঈমানের মেয়ে শারমিন আক্তারের সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। বিয়ের পর থেকেই বিভিন্ন সময়ে তিনি পাঁচ লাখ টাকা যৌতুকের দাবি করে আসছিলেন। এ জন্য স্ত্রীর ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতেন।

    একপর্যায়ে ২০১৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর লালমনিরহাটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে একটি নালিশি পিটিশন মামলা করেন শারমিন। এতে স্বামী আবদুল আখেরসহ তিনজনকে আসামি করেন। আদালত আবদুল আখেরকে অভিযুক্ত করেন, অন্যদের অব্যাহতি দেন। রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে বাদী পক্ষ। আর আসামি পক্ষ থেকে বলা হয়েছে রায়ের বিরুদ্ধে তারা উচ্চ আদালতে আপিল করবে।

    রায়ের বিষয়টি জেনেছেন বলে জানিয়েছেন রংপুর মেট্রোপলিটন ও জেলা সিআইডির পুলিশ সুপারের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আতাউর রহমান। তিনি বলেন, আবদুল আখেরকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত সাজা দেওয়ার বিষয়টি সিআইডি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এখন সিআইডির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বিধি অনুযায়ী তাঁর বিরুদ্ধে পরবর্তী বিভাগীয় ব্যবস্থা নেবে। ইতিমধ্যে আবদুল আখেরকে সাময়িক বরখাস্ত করে রংপুর সিআইডি পুলিশের দপ্তরে সংযুক্ত করা হয়েছে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.